নিজের গু'লিতে নি'হত পু'লিশ সদস্য সাইফুলের গ্রামজুড়ে ঈদের আনন্দ নেই

বাড়ির আঙিনায় রাখা আছে একটি খাটিয়া। এতে রয়েছে নি'হত পু'লিশ সদস্য সাইফুল ইস'লামের (২৭) নিথর দেহ। ঈদের দিনে এমন নিথর দেহ আগে কখনো দেখিনি মানুষ। সহস্রাধিক মানুষ নিথর দেহ দেখতে ভিড় জমায়। সবার চোখে মুখে বিষাদের ছাপ।

এমন বেদনাদায়ক দৃশ্য কুষ্টিয়ার কুমা'রখালী উপজে'লার চাপড়া ইউনিয়নের কবুরাট গ্রামের।

পু'লিশ, পরিবার ও স্থানীয় সুত্র জানায়, আজ বুধবার (২১ জুলাই) ভোর সাড়ে চারটার দিকে কুমা'রখালীর চাপড়া ইউনিয়নের কবুরহাট গ্রামের মৃ'ত মোহাম্ম'দ আলীর একমাত্র ছে'লে মেহেরপুর জে'লার মুজিবনর থা'নার রতনপুর পু'লিশ ফাঁড়িতে কর্তব্যরত অবস্থায় নিজ রাইফেলের গু'লিতে আত্মাহ'ত্যা করেন।পারিবারিক কলহের কারণে এ ঘটনা ঘটতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

চাপড়া ইউনিয়ন পরিষদের ৮ নং ওয়ার্ড সদস্য (মেম্বর) সোহেল রানা বলেন, মায়ের ইচ্ছার বি'রুদ্ধে প্রায় ৬ মাস আগে পু'লিশ সদস্য সাইফুল আরেক মহিলা পু'লিশ সদস্যকে বিয়ে করেছিল। এনিয়ে মা, ছে'লে ও বউয়ের মাঝে মনমালিন্য চলছিল। এনিয়েও এমন ঘটনা ঘটতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

নি'হতের চাচাতো ভাই ফরিদ বলেন, সাইফুল গো'পন রোগে ভুগছিল। এনিয়ে সব সময় দুশ্চিন্তা করত। তবে চিকিৎসা চলছিল ওর। এজন্যও এমন হতে পারে।

চাপড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মনির হাসান রিন্টু বলেন, ঈদের দিনে এমন মৃ'ত্যু এলাকাবাসী আগে দেখিনি। সবার চোখে মুখে বিষাদের ছাপ রয়েছে।

কুমা'রখালী থা'নার ওসি কাম'রুজ্জামান তালুকদার বলেন, নি'হত ব্যক্তি পু'লিশ সদস্য ছিলেন। মেহেরপুর জে'লায় কর্ম'রত ছিলেন। নি'হতের লা'শ বিকেলে তাঁর গ্রামের বাড়িতে পৌছায়। পরে জানাযা শেষে কবুরহাট কবরস্থানে দাফন করা হয়।

মেহেরপুরের পু'লিশ সুপার রাফিউল আলম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বিষয়টি ত'দন্ত করা হচ্ছে। নি'হত সাইফুল দীর্ঘদিন ধরেই মেহেরপুরে কর্ম'রত ছিলেন। তার স্ত্রী'ও মেহেরপুরে নারী পু'লিশ সদস্য হিসেবে কর্ম'রত।

Back to top button