আমা'র চলে যাওয়ার সময় এসেছে : শামীম ওসমান

আমা'র চলে যাওয়ার সময় এসেছে : শামীম ওসমানএখন গাছের পাতায় পাতায় আওয়ামী লীগ বলে মন্তব্য করেছেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান। এটা খুবই বিপদজনক ব্যাপার। এটা যদি রাজনীতিবিদদের হাতে থাকত তাহলে ঠিক আছে। কিন্তু এটা যদি প্রফেশন হয়ে যায় তাহলে খুব মা'রাত্মক ব্যাপার। আমি মনে করি প্রফেশনাল হিসেবে যারা আছেন তাদের সবচেয়ে বড় কাজ হচ্ছে আপনার প্রফেশনে আপনি সাকসেসফুল কিনা সেটা লক্ষ্য রাখা। আপনার ব্যাকগ্রাউন্ড কী' সেটা দেখার দরকার নেই। শুধু একটা জিনিস দেখতে হবে যে মুক্তিযু'দ্ধের পক্ষের শক্তি কিনা।

সোমবার (১ মা'র্চ) নারায়ণগঞ্জ জে'লা পু'লিশ লাইন্সে অনুষ্ঠিত পু'লিশ মেমোরিয়াল ডে অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে এসব কথা বলেন শামীম ওসমান।

তিনি বলেন, আমি এই কথাগুলো বললাম কারণ আমা'র চলে যাওয়ার সময় এসেছে। আমি প্রতিদিন মৃ'ত্যুর জন্য প্রস্তুত থাকি। যদিও আমা'র মৃ'ত্যু আজ থেকে বিশ বছর আগে ১৬ জুন হয়ে গেছে। আমা'র ডানে বায়ে যারা ছিল সবাই মা'রা গেছে। আমি যে সাক্ষী দিয়েছি সে সাক্ষীও বদলে দেয়া হয়েছে এবং সেটা আমা'র সরকারের আমলেই। আমি কোর্টে তা ডিনাই করে এসেছি।

তিনি আরও বলেন, আম'রা স্বপ্ন দেখেছিলাম বঙ্গবন্ধু হ'ত্যার বিচার। ডিসি সাহেবের আব্বা, এসপি সাহেবের ভাইসহ অনেক পু'লিশ সদস্যরা আছেন যাদের নাম দেখলাম তারা চলে গেছেন আমাদের ছেড়ে। কিন্তু আম'রা চলে যাওয়াতে আশ্চর্য হই কেন। পার্মানেন্ট হল চলে যাওয়া আর থেকে যাওয়াটা টেম্পোরারি। আপনাকে যেতে হবেই। আম'রা সবাই এখানে পরীক্ষা দিতে এসেছি পরীক্ষা দিচ্ছি। আমাদের রেজাল্ট দেখবেন আমাদের সৃষ্টিক'র্তা। আমি পু'লিশ ভাইদের বলতে চাই মানুষ আপনাদের কাছে অনেক কিছু আশা করে। তা পূরণ করবেন কী' করবেন না আপনাদের ইচ্ছা।

তিনি আরও বলেন, আমাদের জীবনে কোনো কৈশর ও যৌবন নেই। গতকাল ষাট বছরে পা দিয়েছি। জীবনটা খুব ছোট। জীবন একবারের জন্যই আসে দুইবার আসে না। তো আমি এই জীবনটাতে কী' করলাম। বাংলাদেশের রাজনীতিতে দুই ধরনের মানুষ আছে। একধরনের মানুষ আবেগ দিয়ে রাজনীতি করে। আরেক ধরনের মানুষ তাদের মা'থার বুদ্ধি দিয়ে। যারা আবেগ দিয়ে করে তাদের জন্য রাজনীতিটা খুব কঠিন হয়ে যায়। আবেগ না থাকলে কোন মুক্তিযোদ্ধা কী' যেত যু'দ্ধ করতে। বাঁশে দা কুড়াল নিয়ে পাক বাহিনীর বি'রুদ্ধে যু'দ্ধ করতে গিয়েছিল তারা। আমি দেখেছি আমা'র বাবা যখন নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন বল্লম দা নিয়ে তারা উদ্যত হয়েছিল। একজন বঙ্গবন্ধুর কারণেই এই বিষয়টা সম্ভব হয়েছে।

হাদীসের বর্ণনা দিয়ে তিনি বলেন, আমি যদি অ'বৈধ কাজ করি আমা'র ছে'লে মে'য়েও হাশরের ময়দানে আমাকে চিনবে না। সুতরাং আমি এমপি গাজী ভাই মন্ত্রী আমাদের এ সম্মান আল্লাহ দিয়েছেন। সব ধ'র্মই ভাল কথা বলে কোনো ধ'র্ম খা'রাপ কথা শেখায় না। ভুল করার পর র‍্যে সংশোধন করে তাকে আল্লাহ বেশি পছন্দ করেন। এখানে অনেকে আছেন যাদের পরিবার মুক্তিযু'দ্ধ না করলেও বঙ্গবন্ধু হ'ত্যার পরে বাবা মা একসাথে যু'দ্ধ করেছে আমা'র বড় ভাই নাসিম ওসমানের নেতৃত্বে। আজকে দেশে যে ষড়যন্ত্র হচ্ছে তা আপনারা আমা'র চেয়ে কম জানেন না। এটা শুধু শেখ হাসিনার সরকারকে ফেলে দেয়ার ষড়যন্ত্র না। এটা হচ্ছে রাষ্ট্রকে ধ্বংস করে দেয়ার জন্য। রাষ্ট্রের মূল কাঠামেগুলোকে দেশের বাইরে থেকে বসে প্রতিনিয়ত আ'ঘাত করা হচ্ছে। বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার ইনভেস্ট করা হচ্ছে এই রাষ্ট্রটাকে তা'লেবান রাষ্ট্র বানাতে। আমাদের সচেতন থাকতে হবে কারণ আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম এই দেশে থাকবে। আপনারা ভাল কাজ করবেন আপনাদের প্রশংসা করবো খা'রাপ কাজ করবেন আপনাদের বি'রুদ্ধে কথা বলবো। এখানে কোনো ছাড় হবে না। কারণ আল্লাহর কাছে আমাকে জবাবদিহি করতে হবে।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন নারায়ণগঞ্জ জে'লা পু'লিশ সুপার জায়েদুল আলম।

Back to top button