নানীর মরদেহ দেখতে না পেরে ছাত্রদল সম্পাদকের আকুতি, আল্লাহর কাছে বিচার প্রার্থনা

নানীর মৃত্যুতেও শেষবারের মতো মরদেহ দেখতে পারেননি নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক খায়রুল ইসলাম সজিব৷ মরদেহের কাছাকাছি থেকেও পুলিশ বাহিনীর নির্যাতনের কারণে তিনি জানাযার নামাযে উপস্থিত হতে পারেননি, মরহুমার মুখও দেখতে পারেননি বলে জানান৷ আর এতে করে তীব্র ক্ষোভে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসে আল্লাহর কাছে বিচারও চেয়েছেন এই ছাত্রদল নেতা৷

পার করা সময়কে ‘জীবনের জঘন্যতম পরিস্থিতি’ আখ্যা দিয়ে ফেসবুকে নিজের ব্যক্তিগত আইডি থেকে সজিব লিখেন, “এর থেকে জঘন্যতম পরিস্থিতি কখনো পার করিনি, আজ আমার নানী, আমার আদরের কলিজার টুকরা নানী ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্নালিল্লাহি রাজিউন।”

অথচ দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে, পুলিশ বাহিনীর নির্যাতনের কারণে আজ আমি আমার নানীর জানাজার নামাজে উপস্থিত হতে পারলাম না, আমার নানীর লাশের পাশে থেকো ও আমি আমার নানীর মৃতদেহ দেখতে পারলাম না।

আমি এসেছিলাম আমার নানীর মৃতদেহ দেখতে এবং জানাজার নামাজ পড়তে ওনার জন্য দোয়া করতে কিন্তু বর্তমান এই পুলিশ বাহিনীর নির্যাতনের কারণে ওনার পাশে উপস্থিত থেকেও আমি জানাজা দিতে পারলাম না। আমি ধিক্কার জানাই বর্তমান এই আওয়ামী লীগ সরকার ও আওয়ামী পুলিশলীগ বাহিনীকে। বর্তমানে মানুষের উপর এই জুলুম নির্যাতন করছে এবং আমি এর বিচার আল্লাহর কাছে চাই আল্লাহ এর বিচার আপনি অবশ্যই অবশ্যই করবেন একদিন হলেও আল্লাহ উচিত বিচার করবেন ইনশাআল্লাহ।

আমি আমার নানীর জন্য আপনাদের সকলের কাছে দোয়া চাই আমার নানী যেনো বেহেশতের বাসিন্দা হয় আল্লাহ তায়ালা যেন ওনাকে ক্ষমা করে এবং বেহেশতের বাসিন্দা করে।’

বৃহস্পতিবার (৮ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাতে তার ওই স্ট্যাটাস প্রকাশ্যে আসামাত্রই তা আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়। কমেন্ট বক্সে নেটিজেনরা ওই ছাত্রদল নেতাকে সান্ত্বনা প্রদানের পাশাপাশি মরহুমার জন্য দোয়া করেন৷ সেইসাথে অনেকেই সজিবের তুলে ধরা মর্মান্তিক ঘটনায় ক্ষোভ ও দুঃখ প্রকাশ করেন৷

এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক খায়রুল ইসলাম সজিব মুঠোফোনে বিডি২৪লাইভকে আজ দুপুরে বলেন, ‘সারারাত নির্ঘুম ছিলাম৷ কোনোভাবেই কথা বলার মতো অবস্থানে নেই। আপনারা আমার মরহুমা নানীর জন্য দোয়া করবেন।

প্রসঙ্গত, ২০২২ সালের ৩০ মার্চ আরিফুর রহমান মানিককে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও খায়রুল ইসলাম সজিবকে সাধারণ সম্পাদক করে জেলা ছাত্রদলের কমিটি ঘোষণা করা হয়৷ সজিবের পিতা বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সোনারগাঁ থানা বিএনপির সভাপতি আজহারুল ইসলাম মান্নান। তিনিও দীর্ঘদিন ধরে বিএনপির রাজনীতির সাথে জড়িত। মান্নানের শাশুড়ী, ছাত্রদল সাধারণ সম্পাদক সজিবের নানী, সোনারগাঁ উপজেলার বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়ন হাড়িয়া চক্রবর্তীপাড়া গ্রামের মৃত আবুল কাশেমের স্ত্রী আছিয়া বেগম (৭০) গতকাল রাত সাতটায় ইন্তেকাল করেন।

তিনি দুই ছেলে ও তিন মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। গতকাল রাত ১০ ঘটিকায় সোনারগাঁ উপজেলার বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়নে নিজ বাড়ি হাড়িয়া চক্রবর্তীপাড়ায় জানাজা শেষে উলুকান্দি নাকাটিভাঙা ঈদগাহ সংলগ্ন সামাজিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

Back to top button