মোটরসাইকেল পাওয়ার জন্য স্ত্রীকে প্রেমের অনুমতি দেন স্বামী

বগুড়ায় প্রেমের ফাঁদে ফেলে প্রেমিকের মোটরসাইকেল ছিনতাই করার অভিযোগে বৃষ্টি আখতার (২০) নামের এক তরুণীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রোববার (১৪ আগস্ট) রাতে নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এ ঘটনায় জড়িত রয়েছেন বৃষ্টির স্বামী সিরাজুল। তবে এ ঘটনায় ছিনতাই করা মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হলেও জড়িত বৃষ্টির স্বামীকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

গ্রেফতারের পর বৃষ্টি আখতার আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। বৃষ্টি বগুড়া সদরের সিরাজুল ইসলাম সেতুর স্ত্রী। মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) দুপুরে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানান জেলা পুলিশের সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শরাফত ইসলাম।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, কিছুদিন আগে বগুড়া সদর থানার দাড়িয়াল গ্রামের আব্দুল ওয়াহাব লটারিতে একটি অ্যাপাচি ফোরভি ১৬০ সিসি মোটরসাইকেল পান। ওয়াহাব ও তার ছেলে রবিন (১৭) মোটরসাইকেলটি চালান। পাশের গ্রামের সিরাজুল ইসলাম সেতু মোটরসাইকেলটি ছিনতাই করার পরিকল্পনা করেন।

পরিকল্পনা অনুযায়ী সিরাজুল তার স্ত্রী বৃষ্টিকে রবিনের মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করে দেন এবং তার সঙ্গে প্রেমের অভিনয় করতে বলেন। স্বামীর পরামর্শে বৃষ্টি রবিনের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন। এরপর দেখা করার প্রস্তাব দেন বৃষ্টি। গত মঙ্গলবার (৯ আগস্ট) দুপুরের পর রবিন তার বন্ধু নিরবকে সঙ্গে নিয়ে মোটরসাইকেলযোগে শিবগঞ্জ উপজেলার ভাসুবিহার নরপতির ধাপ এলাকায় যায়। সেখানে বৃষ্টি আগে থেকেই রবিনের জন্য অপেক্ষা করছিলেন। রবিন তার বন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে ভাসুবিহার নরপতির ধাপে পৌঁছে বৃষ্টির সঙ্গে দেখা করে। তারা দুজনে নির্জন স্থানে বসে গল্প শুরু করেন।

এ সুযোগে বৃষ্টি তার স্বামীকে মোবাইল ফোনে মেসেজ দিয়ে তাদের অবস্থান জানিয়ে দেন। বৃষ্টি তার প্রেমিকের সঙ্গে গল্প করার সময় আগে থেকেই নিয়ে আসা চেতনানাশকমিশ্রিত পানীয় পান করান। কিছুক্ষণের মধ্যে রবিন অসুস্থবোধ করেন। বৃষ্টির স্বামী তার এক সহযোগীকে নিয়ে সেখানে পৌঁছান। পরে ওই তরুণীর সঙ্গে গল্প করার অপরাধে চড়থাপ্পড় দিয়ে রবিনের মোটরসাইকেলসহ তাকে (বৃষ্টি) তুলে নিয়ে যান। কিছু দূর গিয়ে ফাঁকা স্থানে রবিনকে মারপিট করে রাস্তায় ফেলে রেখে মোটরসাইকেল ও মোবাইল ফোন নিয়ে সিরাজুল পালিয়ে যান।

রোববার ঘটনাটি শিবগঞ্জ থানা পুলিশকে জানান রবিনের মা রোজিনা আখতার। পরে পুলিশ অভিযান শুরু করে। পরে তথ্যপ্রযুক্তির সহযোগিতায় পুলিশ বৃষ্টি আখতারের অবস্থান শনাক্ত করে এবং তাকে গ্রেফতার করে। এ সময় বৃষ্টির হেফাজত থেকে মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়। বৃষ্টির স্বামী পালিয়ে যান। পরে পুলিশ বৃষ্টির দেওয়া তথ্যমতে দিনাজপুরের বিরামপুর থানা এলাকা থেকে মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করা হয়।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শরাফত ইসলাম জানান, বৃষ্টিকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত তার স্বামী সিরাজুল ইসলামকে গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Back to top button