দেশে নিত্যপণ্যের বাড়তি দাম, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে অ্যাকশনে নামছে প্রশাসন

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেছেন, প্রতিটি জেলা প্রশাসকদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া জন্য। পাশাপাশি সরকারের এজেন্সি ডিজিএফআই, এনএসআইকে বলা হয়েছে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য। সরকার এ বিষয়ে কঠোর অবস্থানে রয়েছে। সরকার ব্যবসায়ীদের সুবিধা দেবে, কিন্তু এর মানে তা নয়; ব্যবসায়ীরা নিজেদের ইচ্ছামতো সবকিছু করবে।

বুধবার সাংবাদিকদের এমন তথ্য জানালেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। পাশাপাশি অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে সরকারের এজেন্সি, জেলা প্রশাসক ও বাজার মনিটরিং টিমগুলোকে নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

আসন্ন পবিত্র রমজান উপলক্ষে পণ্যের মূল্য, আমদানি ও মজুদ পরিস্থিতি নিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী বৈঠক করেন সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থা, এজেন্সি ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে। দুপুর আড়াইটা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে আগামী ৩১ মে থেকে সয়াবিন এবং ৩১ ডিসেম্বর পামঅয়েল তেল বাজারে খোলা বিক্রি নিষিদ্ধ। এটি বাস্তবায়নে বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয় যৌথভাবে কাজ করছে।

বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফিংয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, আমি আজকে ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তর, টিসিবি, প্রতিযোগিতা কমিশন, সরকারের এজেন্সিগুলোকে ডেকেছি। ব্যবসায়ীরা যাতে পণ্যের যৌক্তিক মূল্য মেনটেইন হয় এবং কেউ যাতে পণ্যের বাজারে কোনো খারাপ প্র্যাকটিস না করে এ নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। আমি প্রধানমন্ত্রীর এ নির্দেশ পৌঁছে দিয়েছি। ভোগ্যপণ্যের বাজারে কোনো কালো হাতের প্রভাব বিস্তার করতে দেওয়া হবে না। কোনোভাবে অসাধু ব্যবসায়ীদের বিচরণ করতে দেওয়া হবে না। এ জন্য যতটুকু যেত হয় যাব এবং যত শক্ত হওয়া দরকার সেটি করা হবে। ইতোমধ্যে কয়েকটি পণ্যের ক্ষেত্রে অসাধু ব্যবসায়ীর কৌশল ধরা পড়েছে।

Back to top button