কাফনের কাপড় জড়িয়ে অনশন, তিন বোনকে বাড়ি দেবেন এসপি

বরগুনায় দখল হয়ে যাওয়া জমিজমা ও বসতঘর ফিরে পেতে কাফনের কাপড় গায়ে জড়িয়ে আমরণ অনশনে বসেছেন তিন বোন। বসতঘর ও জমি ফিরে না পাওয়া পর্যন্ত অনশন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন তারা।

বুধবার সকালে বরগুনা জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বরে অনশনে বসেন তিন বোন। তারা হলেন- বরগুনার বামনা উপজেলার গোলাঘাটা গ্রামের মৃত আবদুর রশীদের মেয়ে রুবি আক্তার (২৭), জেসমিন আক্তার (১৮) ও মোসা. রোজিনা (১৬)।

জানা গেছে, মা-বাবা মারা যাওয়ার পর ছোট দুই বোনকে নিয়ে চট্টগ্রামে চলে যান রুবি। সেখানে একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করে দুই বোনকে লেখাপড়া করান। এর কয়েক বছর পর ২০১৯ সালে নিজ বাড়িতে ফিরে দেখেন তাদের পৈতৃক সম্পত্তি দখল করে নিয়েছেন এলাকার প্রভাবশালীরা। এমনকি তাদেরকে বসতঘর থেকেও বের করে দেয়া হয়। এরপর থেকে মানবেতর জীবনযাপন করছেন তারা।

বড় বোন রুবি আক্তার বলেন, মা-বাবা মারা যাওয়ার পর একমাত্র ভাইও মারা যায়। আমার ছোট বোনেরা দূরসম্পর্কের আত্মীয়ের বাসায় থেকে লেখাপড়া করতো। তিন বছর আগে আমি বাড়িতে এসে দেখি আমাদের বাবার সব সম্পত্তি আমার চাচারা এলাকার প্রভাবশালীদের যোগসাজশে দখল করে নিয়েছে। আমরা জমি বুঝে পেতে চাইলে তারা বলেন, আমাদের জমি নাকি নিলামে কিনে নিয়েছেন। পরে উপজেলা ভূমি অফিসে গিয়ে জানতে পারি এই জমির কোনো নিলাম হয়নি।

তিনি আরও বলেন, বিষয়টি ইউএনও, উপজেলা চেয়ারম্যান ও ডিসিকে জানালেও তারা আমাদের ব্যাপারে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। তাই বাধ্য হয়ে অনশনে বসতে হয়েছে। আমাদের দাবি আদায়ে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চাই। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমরণ অনশন চলবে।

বরগুনার জেলা প্রশাসক (ডিসি) হাবিবুর রহমান বলেন, আমি তাদেরকে আমার অফিসে ডাকলেও তারা আসেনি। পরে আমি নিজে গিয়ে তাদের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করেছি। কিন্তু তারা আমার সঙ্গে কথা বলতে রাজি হয়নি। তারা প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চায়।

তবে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে অনশনকৃত তিন বোনের অনশন ভাঙিয়ে বুধবার বিকেল ৪টার দিকে বামনা উপজেলার গোলাঘাট বাড়িতে যান বরগুনার পুলিশ সুপার মুহম্মদ জাহাঙ্গীর মল্লিক। তিনি গিয়ে তাদের অসহায়ত্বের কথা শুনে নিজ উদ্যোগে বাড়ি তৈরি করার আশ্বাস দিয়েছেন।

Back to top button