আমাকে ভালো মানুষ হতে হবে এই চর্চাটা সবসময়ই করি: মিশা

সময়ের সেরা আলোচিত অভিনেতা মিশা সওদাগর। যখন তিনি খলনায়ক হিসেবে পার্দায় হাজির হন তখন তিনি এক আতংকের নাম। কূট-কৌশলে সবাইকে বিপদে ফেলতে, খুন-জখম করতে তার জুড়ি নেই। আবার যখন একজন ভালো মানুষের চরিত্রে আসেন তখন সেই ছবির নায়ক-নায়িকাকে ছাপিয়ে তিনিই হয়ে ওঠেন আলোচনার চরিত্র।

এক সাক্ষাৎকারে মিশা সওদাগর বলেন, বাস্তবে সাধারণ থাকতে, আদর্শ থাকতে পছন্দ করি। এই ফিলোসফি আমার মধ্যে আছে। যেহেতু আমি শিল্পী তাই আমাকে অনেক সংযত থাকতে হবে। কারণ মানুষ আমাকে দেখবে, জানবে, আলোচনা-সমালোচনা করবে এই দিকগুলোতে আমি নজর দেই।

আমি তো আর এভারেজ মানুষ না। আর পর্দায় যে চরিত্র তুলে ধরি, ওই চরিত্রটা টাকা দিয়ে আমাকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়। আমি সেটাই ফুটিয়ে তুলি। সেটা আমার পেশাজীবনের অংশ। ফলে সিনেমার সঙ্গে আমার বাস্তব জীবনের মিল নেই। বাস্তব জীবনে আমি আমার মতো হতে সাধনা করছি। অর্থাৎ আমাকে ভালো মানুষ হতে হবে- এই চর্চাটা আমি সবসময়ই করি।

এসময় তিনি আরও বলেন, এবার এগারোটা পুরস্কার পেয়েছে ‘গোর’। সাতটা পেয়েছে ‘বিশ্ব সুন্দরী’। একমাত্র কাজী হায়াতের কমার্শিয়াল সিনেমায় অভিনয় করে আমি পুরস্কার পেয়েছি। আমার ভালো লাগা হলো- আমি এফডিসিকে ধারণ করি, লালন করি। বাংলাদেশের মৌলিক ও সুপার ডুপার হিট সিনেমার পরিচালক কাজী হায়াতের ৫০তম সিনেমায় অভিনয় করে আমি এই পুরস্কার পেয়েছি। এটা আমার জন্য অনেক আনন্দের। আমার স্বার্থকতা হচ্ছে- এতগুলো মিডিয়ার সিনেমা পুরস্কার পেয়েছে, তার মধ্যে আমি একমাত্র মূলধারার সিনেমার শিল্পী হিসেবে পুরস্কার পেয়েছি। এটা গর্বের। তাছাড়া আমার একটা শখ ছিল কাজী হায়াতের সিনেমায় অভিনয় করে যেন একটা পুরস্কার পাই। সেই শখ পূরণ হয়েছে।

Back to top button