বিকট শব্দে লঞ্চের সবাই আতঙ্কে ছুটছিলেন!

ঢাকার সদরঘাট থেকে ছেড়ে যাওয়া বরিশালগামী সুরভী-৭ লঞ্চের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষে একটি বাল্কহেড ডুবে গেছে। এতে নিখোঁজ হয়েছেন একজন। বুধবার রাত ১১টার দিকে নারায়ণগঞ্জের চর কিশোরগঞ্জ এলাকা সংলগ্ন মেঘনা নদীতে এই দুর্ঘটনা ঘটে। বাল্কহেডের সঙ্গে লঞ্চের ধাক্কা লাগতেই বিকট শব্দ হয়। এসময় যাত্রীরা আতঙ্কিত হয়ে ছুটছিলেন একদিক থেকে অন্যদিকে। ঘটনায় মোহাম্মদ মোতলেব হোসেন নামে বাল্কহেডের এক শ্রমিক নিখোঁজ রয়েছেন।

নৌ পুলিশ জানায়, চাঁদপুর থেকে বালু বোঝাই করে ডেমরাগামী দারুল মাকাম-৩ নামের বাল্কহেডটিতে ছয়জন স্টাফ ছিলেন। তাদের মধ্যে সুকানি সবুজ (৩২), গ্রিজার মো. আক্তার (১৮), বাবুর্চি আব্দুল খালেক (৬৫) ও লস্কর ইমরান (২০) দুর্ঘটনার পর তীরে উঠতে সক্ষম হন। স্টাফদের এখন কলাগাছিয়া নৌ পুলিশ ফাঁড়ির হেফাজতে রাখা হয়েছে। তবে লস্কর মো. হৃদয় (১৮) লঞ্চে উঠে পালিয়েছেন।

কলাগাছিয়া নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো. জহিরুল হক জানান, রাতে নদীতে বালু উত্তোলনের বিধিনিষেধ থাকলেও তা উপেক্ষা করে রাতভর বালু লুট করা হচ্ছে। আর রাতে বালু নিয়ে যওয়ায় সময় এই দুর্ঘটনা ঘটে। নিখোঁজ মোহাম্মদ মোতলেব হোসেনের বাড়ি ভোলা জেলার দুলারহাট থানার নুরাবাদ গ্রামে। তাকে উদ্ধারে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।

স্থানীয়রা জানান, বরিশালগামী লঞ্চটি বাল্কহেডকে ধাক্কা দেয়। এ সময় নদীর মাঝখানে যাত্রীরা চিৎকার শুরু করে। তারা নদীর তীরে এসে দেখেন বাল্কহেড নদীতে ডুবে গেছে। তবে লঞ্চের যাত্রীরা সবাই নিরাপদে আছেন।

এদিকে, যাত্রীবাহী লঞ্চের তলা ফেটে যাওয়ায় ৬ শতাধিক যাত্রীকে বিকল্প লঞ্চের মাধ্যমে গন্তব্যে পাঠানো হয়েছে। সুরভী-৭ লঞ্চের মালিক রিয়াজুল কবির বলেন, ‘যাত্রীদের উদ্ধার করতে কীর্তনখোলা-১০ নামের লঞ্চ পাঠানো হয়।’

Back to top button