‘বাতিল ভোট কাউন্ট করতে’ হারুনকে নিপুণের এসএমএস

গত ২৮ জানুয়ারি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে রয়েছে নানান রকমের তর্ক-বির্তক। চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে এবার প্রধান নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্ব পালন করেছেন পীরজাদা হারুন।

পীরজাদা হারুনের বিরুদ্ধে সাধারণ সম্পাক প্রার্থী চিত্রনায়িকা নিপুণ একাধিক অভিযোগ আনেন। এবার হারুণ নিপুণকে নিয়ে বিস্ফোরক তথ্য দিলেন। তিনি বলেন, গভীর রাতে নিপুণ আমাকে এসএমএস করেছে। শুক্রবার (১১ ফেব্রুয়ারি) দেশের একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যালেনে প্রচারিত লাইভ সাক্ষাৎকারে এ কথা বলেন পীরজাদা হারুন।

এসময় তিনি বলেন, ‘‘নিপুণ আমাকে একটা মেসেজ দিয়েছে রাত সাড়ে ৩টার দিকে। সেখানে সে বলেছে, ‘আমার বাতিল ভোটগুলো আমার পক্ষে কাউন্ট করে দেন।’’ এই এসএমএস-এর সত্যতা বিষয়ে পীরজাদা হারুন আত্মবিশ্বাস নিয়ে বলেন, ‘‘আমার মোবাইলে প্রমাণ আছে। …গোপন কথা গোপন রাখাই ভালো। যেহেতু এই রিকোয়েস্ট অনুযায়ী আমি কোনো কাজ করিনি, তার পক্ষে বা বিপক্ষে কোনো পদক্ষেপ নেইনি, তাই এই যে সে মেসেজ পাঠিয়েছে, এটার কোনো গ্রহণযোগ্যতা বা কোনো মূল্য নেই। তবে প্রমাণ হিসেবে দাঁড় করতে পারেন। কিন্তু প্রমাণ দাঁড় করানোটা সমীচীন হবে না। একজনকে হেয় প্রতিপন্ন করা সমীচীন হবে না।’

উল্লেখ্য, চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে প্রাথমিক ফলে সাধারণ সম্পাদক পদে জায়েদ খানকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। তবে তার বিরুদ্ধে টাকা দিয়ে ভোট কেনাসহ নির্বাচনকে প্রভাবিত করার অভিযোগ আনলে ৫ ফেব্রুয়ারি আপিল বোর্ড জায়েদের প্রার্থিতা বাতিল করে নিপুণকে সা. সম্পাদক পদে জয়ী ঘোষণা করে।

এরপর থেকেই বিষয়টি ‘বেআইনি’ দাবি করে আসছেন চিত্রনায়ক জায়েদ খান। সুবিচার পেতে তিনি আদালতের দ্বারস্থ হন। গত ৭ ফেব্রুয়ারি আপিল বোর্ডের দেওয়া সিদ্ধান্ত স্থগিত করেন হাইকোর্ট।

পরদিন মঙ্গলবার এই আদেশের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আবেদন করেন অভিনেত্রী নিপুণ। সেই আবেদনের ওপর বুধবার চেম্বার আদালতে শুনানি হয়। শুনানিতে জায়েদ খানের পক্ষে দেওয়া হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত করে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক পদে ‘স্থিতাবস্থা’ জারি করেন চেম্বার আদালত। আজ রবিবার পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানির পরই জানা যাবে কে হবেন শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক।

Back to top button