জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রেললাইনের আগুন নেভালো ইফাদ

রেললাইনের পাশেই খেলছিল ১৩ বছরের ইফাদ ও তার বন্ধুরা। হঠাৎ তারা দেখতে পায় রেলসেতুর মাঝামাঝি রেললাইনের স্লিপারে আগুন আর ধোঁয়ার কুণ্ডলী। ইফাদের বাড়িও রেললাইনের ধারে তাই সে জানত একটু পরেই চলে আসবে ট্রেন। তাই সে দৌড়ে বালতি ভর্তি পানি এনে আগুন নিভিয়ে দেয়।

আগুন নিভানোর সঙ্গে সঙ্গেই আখাউড়া থেকে ছেড়ে আসা চট্টগ্রামগামী মালবাহী একটি ট্রেন রেলসেতুতে প্রবেশ করে। ট্রেনটি আসার ঠিক আগের মুতূর্তে নিভে যায় আগুন। কিশোর ইফাদ ট্রেনের সামনে থেকে কোনরকমে লাফিয়ে সেতুর খুটির মাঝে বসে জীবনরক্ষা করে। আর এভাবেই দুর্ঘটনার ঝুঁকি থেকে বেঁচে ট্রেনটি চলে যায় গন্তব্যে।

বৃহস্পতিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে আখাউড়া উপজেলার মোগড়া ইউনিয়নের গঙ্গাসাগর রেলওয়ে স্টেশনের উত্তর আউটার সিগন্যাল এলাকার পাশে ঘটে এ ঘটনা। ঘটনাটির একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে সবাই এই ইফাদের এই সাহসী কাজের প্রশংসা করছেন।

গঙ্গানগর গ্রামের কিশোর ইফাদ জানায়, তার বাড়ির পাশে রেলসেতু। আগুনের কুণ্ডলীর ওপর দিয়ে ট্রেন গেলে বড় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে, এমন আশঙ্কা থেকেই সে দৌড়ে বালতি ভর্তি পানি দিয়ে আগুন নেভায়।

আখাউড়া রেলওয়ে জংশন স্টেশনের সুপারিন্টেন্ডেন্ট (ভারপ্রাপ্ত) মো. জসিম উদ্দিন বলেন, জানতে পেরেছি স্কুলছাত্র ইফাদের বুদ্ধিমত্তায় বড় ধরনের দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেয়েছে। তার এ ভূমিকা সত্যিই প্রশংসনীয়। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট দফতরের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ‌ও জানে বলে জানালেন তিনি।

Back to top button