যখন আমি ভয় পাই, তখন আল্লাহর নাম নিই: মুসকান

ভারতের দক্ষিণাঞ্চলীয় রাজ্য কর্ণাটকে হিজাব নিয়ে উত্তেজনা চলছেই। যা পুরো দেশেই ছড়িয়ে পড়েছে। সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। ভিডিওতে দেখা যায়, একজন ছাত্রী বোরকা পরে কলেজে এসে ক্লাসে যাচ্ছেন। তাকে দেখে কিছু ছেলে তার অনুসরণ করে।

গেরুয়া রঙের স্কার্ফ পরিহিত সেই ছেলেগুলো ‘জয় শ্রী রাম’ শ্লোগানে ছাত্রীটির দিকে এগিয়ে যেতে থাকে। এরপর ওই ছাত্রী দু’হাত তুলে ‘আল্লাহু আকবার’ বলে চিৎকার করতে থাকেন। এই ভিডিওটি পুরো ভারত ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলোচনার ঝড় তুলেছে।

চারিদিক থেকে প্রশংসায় ভাসছেন প্রতিবাদী মেয়ে মুসকান। এবার সেই ঘটনার বিস্তারিত জানিয়েছেন তিনি নিজেই। বিবিসিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে মুসকান বলেন, আমি আল্লাহু আকবর বলেছিলাম কারণ আমি খুব ভয় পেয়েছিলাম। এবং যখন আমি ভয় পাই, আমি আল্লাহর নাম নিই।

তিনি বলেন, সেদিন কলেজে যাবার পর একদল লোক এসে বলে বোরকা পরে কলেজের ভেতরে যাওয়া যাবে না। কলেজে যেতে হলে বোরকা ও হিজাব খুলে ভেতরে যেতে হবে। তুমি যদি বোরকা পরে থাকতে চাও, তবে বাড়ি ফিরে যাও। আমি ভিতরে এলাম। ভেবেছিলাম চুপচাপ চলে যাব। কিন্তু সেখানে অনেক শ্লোগান উঠছিল। ‘বোরকা কাদ’, ‘জয় শ্রী রাম’-এর মতো শ্লোগান উঠছিল।

মুসকান বলেন, ছেলেগুলো আমাকে এমনভাবে অনুসরণ করছিলো যেন তারা সবাই আমাকে আক্রমণের চেষ্টা করছে। তারা ছিল ৪০ জনের মতো। আমি ছিলাম একা। কারো মধ্যে আমি মনুষ্যত্ব আমি লক্ষ্য করিনি। হঠাৎ তারা আমার কাছে এসে চিৎকার করতে লাগল। কারো কারো হাতে ছিল কমলা রঙের স্কার্ফ। আমার মুখের সামনে এসে স্কার্ফ দোলাতে দোলাতে বলতে লাগলো – জয় শ্রী রাম, চলে যাও, বোরকা খুলে ফেলো।

তিনি আরও বলেন, আমি এখানে হিন্দু বা মুসলিম কোন জাতপাত ছড়াচ্ছি না। আমি শুধু আমার শিক্ষার জন্য, আমার অধিকারের জন্য দাঁড়িয়েছি। আমরা হিজাব পরছি বলে আমাদের ঢুকতে দেয়া হচ্ছে না। আমাদের শুধু দরকার শিক্ষা। আমাদের অধ্যক্ষ আমাদের সঙ্গে আছেন, শিক্ষকরা আমাদের সাথে আছেন। বাইরে থেকে এসে কিছু লোক কেবল নজর কাড়ার চেষ্টা করছে।

Back to top button